শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

সুদান থেকে জেদ্দায় পৌঁছেছেন ১৩৫ বাংলাদেশি

প্রকাশ: ৭ মে ২০২৩ | ৮:৪০ অপরাহ্ণ আপডেট: ৭ মে ২০২৩ | ৮:৪০ অপরাহ্ণ
সুদান থেকে জেদ্দায় পৌঁছেছেন ১৩৫ বাংলাদেশি

সুদানে আটকে পড়া ৬৭৫ বাংলাদেশির মধ্যে ১৩৫ জন বিমানযোগে জেদ্দায় পৌঁছেছেন।  রোববার (৭ মে) জাহাজ না পাওয়ার কারণে তাদের বিমানে জেদ্দায় আনা হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষিণ আফ্রিকা অনুবিভাগের মহাপরিচালক তারিকুল ইসলাম এদিন (৭ মে) সন্ধ্যায় বাংলানিউজকে জানান, সুদানে আটকে পড়া ৬৭৫ বাংলাদেশির মধ্যে ১৩৫ জনকে বিমানযোগে জেদ্দায় ফিরিয়ে আনা হয়েছে। বাকিদেরও জাহাজ বা বিমানে ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টা চলছে।

সূত্র জানায়, পোর্ট সুদান থেকে জেদ্দায় ফেরার জন্য ৬৭৫ বাংলাদেশি অপেক্ষায় ছিলেন। ট্রাভেল পারমিট ইস্যু ও জাহাজের শিডিউল পেতে দেরি হওয়ার জন্য তারা জেদ্দায় পৌঁছাতে পারছিলেন না। তবে জাহাজ না পাওয়ায় বিমানযোগে ১৩৫ জনকে জেদ্দায় আনা হয়েছে।

সুদানে আটকে পড়া ৬৭৫ জন বাংলাদেশি নাগরিক গত ৩ মে পোর্ট সুদান পৌঁছান। তবে পোর্ট সুদানে পৌঁছানোর পর দেখা যায়, অনেক বাংলাদেশির পাসপোর্ট নেই। সে ক্ষেত্রে তাদের ট্রাভেল ডকুমেন্ট তৈরি করতে হয়েছে। 

সুদানের সেনাবাহিনী ও আধা-সামরিক বাহিনীর মধ্যে গত ১৫ এপ্রিল থেকে সংঘর্ষ চলমান। গত দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে চলা এই সংঘর্ষ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। এ পর্যন্ত প্রায় ৪ শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছে। এদের মধ্যে বেসামরিক লোকজন ছাড়াও জাতিসংঘ কর্মী, মিশরের সহকারী প্রতিরক্ষা উপদেষ্টাও রয়েছেন।

সুদানে প্রায় ১৫০০ বাংলাদেশি রয়েছেন। এদের মধ্যে প্রায় ৭০০ বাংলাদেশি দেশে ফেরত আসার জন্য ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। আটকে পড়া ৬৭৫ জন বাংলাদেশিকে গত ৩ মে খার্তুম থেকে পোর্ট সুদানে আনা হয়।  এখন পোর্ট সুদান থেকে তাদের জেদ্দায় ফিরিয়ে আনা হবে। জেদ্দা থেকে বাংলাদেশ বিমানের কয়েকটি ফ্লাইটে করে এসব বাংলাদেশিদের ঢাকায় আনা হবে।

জেদ্দার দুটি বাংলাদেশ স্কুলে সুদান প্রবাসীদের জন্য খাদ্য, পানীয়, ওষুধ ও সাময়িক বাসস্থানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। খার্তুম থেকে পোর্ট সুদানে বাংলাদেশ অ্যাম্বাসির পক্ষ থেকে প্রবাসীদের জন্য খাদ্য, পানীয়, ওষুধ এবং সাময়িক বাসস্থানের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

সুদান প্রবাসীরা জেদ্দা পৌঁছানোর পর, বাংলাদেশ বিমানের নিয়মিত বা বিশেষ ফ্লাইটে তাদের ঢাকায় ফিরিয়ে আনা হবে। সৌদি আরবে সুদান ফেরত প্রবাসী বাংলাদেশিরা ৭২ ঘণ্টা অবস্থান করতে পারবেন। এই সময়ের মধ্যেই তাদের দেশে ফেরত আনতে হবে।

সম্পর্কিত পোস্ট