শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

শেষ বলের উইকেটে স্বস্তিতে বাংলাদেশ

প্রকাশ: ১৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ৫:৪৫ অপরাহ্ণ আপডেট: ১৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ৫:৪৫ অপরাহ্ণ
শেষ বলের উইকেটে স্বস্তিতে বাংলাদেশ

দিনের শেষ বলে অক্ষর প্যাটলকে (১৪) এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। এতে চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিন শেষে কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে বাংলাদেশ শিবিরে। টস জিতে ব্যাট করতে নামা ভারতের সংগ্রহ দাঁড়িয়েছে ৬ উইকটে ২৭৮ রান। ৮২ রানে অপরাজিত থেকে দিন শেষ করেছেন শ্রেয়াস আইয়ার।

অথচ দিনের পুরোটাই বাংলাদেশের হতে পারতো। কিন্তু ম্যাচ মিস, রিভিউ না নেওয়া এবং উইকেটে বল লাগার পরও বেল না পড়া, সব মিলিয়ে সাগরিকায় মিশ্র একটি দিন পার করলো বাংলাদেশ।

এর আগে সিরিজের প্রথম টেস্টে বাংলাদেশের বিপক্ষে টস জিতে ব্যাট করতে নামে ভারত। এই ম্যাচে খেলা নিয়ে সংশয় থাকলেও সকালে সুস্থ হয়ে ওঠেন শুরুতে অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ইনজুরির কারণে আগেই ছিটকে গেছেন তামিম ইকবাল। তাঁর পরিবর্তে একাদশে সুযোগ পার জাকির হাসান।

দেশের ১০১তম ক্রিকেটার হিসেবে টেস্টে অভিষেক হলো বাঁহাতি ব্যাটারের। আজ বুধবার সকালে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করতে নামা ভারতকে চেপে ধরে বাংলাদেশ। দলীয় ৪৮ রানের মধ্যে সাজ ঘরে ফেরেন লোকেশ রাহুল, শিভমান গিল এবং বিরাট কোহলি।

শুরুতে ব্যক্তিগত ২০ রানে তাইজুল ইসলামের শিকার হন শুভমান গিল। এরপর অধিনায়ক লোকেশ রাহুলকে (২০) বোল্ড করেন পেসার খালিদ আহমেদ। তাইজুলের দ্বিতীয় শিকার হন বিরাট কোহলি। ব্যক্তিগত ১ রানে এলবিডব্লিউ হন ডানহাতি এই ব্যাটার। ভালো শুরু দিয়ে লাঞ্চ বিরতীতে যায় বাংলাদেশ।

লাঞ্চের পরও ভারতীয় ব্যাটারদের ওপর চাপ অব্যাহত রাখে টাইগাররা। ওয়ানডে মেজাজে খেলতে থাকা ঋষভ পান্তকে বোল্ড করেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ৪৫ বলে ৪৬ রান করেন বাঁহাতি এই ব্যাটার।

চতুর্থ উইকেট জুটি ভারতকে ম্যাচে ফেরান চেতেশ্বর পূজারা এবং শ্রেয়াস আইয়ার। এতে অবশ্য বাংলাদেশের কৃতিত্ব বেশি। আলাদা করে বললে উইকেটকিপার নুরুল হাসান সোহানের অবদান বেশি।

লাঞ্চের আগেই পূজারাকে আউট করার সুযোগ পেয়েছিল বাংলদেশ। কিন্তু এবাদতের বলে ব্যক্তিগত ২২ রানে উইকেটের পেছনে ক্যাচ তুললে তা ধরতে পারেননি বাংলাদেশের উইকেটকিপার। আবার ব্যক্তিগত ৩০ রানের উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়েছিলেন আইয়ার। তাও ধরতে ব্যর্থ হন সোহান। এ ছাড়া ডিপ মিড উইকেটে আবারও ক্যাচ দিয়েছিলেন আইয়ার। এবার ক্যাচ মিস করেন এবাদত হোসেন।

তবে তৃতীয় সেশনের শেষ বেলায় ভারতীয় ব্যাটিং লাইনআপে আঘাত হানেন তাইজুল ইসলাম। বাঁহাতি স্পিনারের ঘূর্ণিতে বোল্ড হন চেতেশ্বর পূজারা (৯০)। মাত্র ১০ রানের জন্য সেঞ্চুরি বঞ্চিত হন ডানহাতি এই ব্যাটার। এতে ভেঙে যায় শ্রেয়াস আইয়ারের সঙ্গে ১৪৯ রানের জুটি।

অবশ্য এর আগের ওভারে উইকেট পেতে পারত বাংলাদেশ। এবাদত হোসেনের বলে বোল্ড হয়েছিলেন আইয়ার। কিন্তু উইকেটের বেল মাটিতে না পড়ায় বেঁচে যান ডানহাতি এই ব্যাটার।

তিন উইকেট শিকার করে দিন শেষে বাংলাদেশের সফল বোলার তাইজুল ইসলাম। এ ছাড়া মেহেদী হাসান মিরাজ দুটি এবং খালেদ আহমেদ নেন একটি উইকেট।  

সম্পর্কিত পোস্ট