শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০

মিরাজের শতকে টাইগারদের চ্যালেঞ্জিং স্কোর

প্রকাশ: ৭ ডিসেম্বর ২০২২ | ৫:০৫ অপরাহ্ণ আপডেট: ৭ ডিসেম্বর ২০২২ | ৫:১৩ অপরাহ্ণ
মিরাজের শতকে টাইগারদের চ্যালেঞ্জিং স্কোর

মেহেদী হাসান মিরাজের ক্যারিয়ারের প্রথম শতক এবং মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের অর্ধশতকে ভারতের বিপক্ষে চ্যালেঞ্জিং স্কোর পেয়েছে বাংলাদেশ। তিন ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ভারতকে ২৭২ রানের টার্গেট দিয়েছে টাইগাররা। এর আগে আজ বুধবার মিরপুরে টস জিতে আগে ব্যাট করে ৭ উইকেটে ২৭১ রান করে বাংলাদেশ।

প্রথম ওয়ানডে জিতে সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে বাংলাদেশ। এ ম্যাচ জিতলে ৭ বছর পর আবারও ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জিতবে টাইগাররা। একটি পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নেমেছে টাইগাররা। পেসার হাসান মাহমুদের বদলে একাদশে ফেরেন বাঁহাতি স্পিনার নাসুম আহমেদ।

ফলে দুই পেসার ও তিন স্পিনার নিয়ে নামে বাংলাদেশ। অন্যদিকে দুই পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামে ভারত। কুলদীপ সেন ও শাহবাজ আহমেদের পরিবর্তে একাদশে ফেরেন অক্ষর প্যাটেল ও উমরান মালিক।

সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ওপেনিং জুটিতে পরিবর্তন আনে বাংলাদেশ। প্রথম ওয়ানডেতে লিটন দাসের সঙ্গে ওপেনিংয়ে নামেন নাজমুল হোসেন শান্ত। কিন্তু এই ম্যাচে বাংলাদেশ অধিনায়কের সঙ্গী হন এনামুল হক বিজয়।

এরপরও শুরুটা ভালো হয়নি টাইগারদের। মোহাম্মদ সিরাজের করা দ্বিতীয় ওভারে পরপর দুই বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ভালো শুরুর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন এনামুল হক। পরের বলে স্লিপে ক্যাচ তুলে দেন তিনি। কিন্তু তা ধরতে পাারেনি ভারতীয় অধিনায়ক রোহিত শর্মা। সুযোগ পেয়েও তা কাজে লাগে ব্যর্থ হয়েছেন ডানহাতি এই ব্যাটার। ব্যক্তিগত ১১ রানে সাজঘরে ফেরেন এনামুল।

দলীয় ৩৯ রানের মোহাম্মদ সিরাজের দ্বিতীয় শিকার হন লিটন দাস। ব্যক্তিগত ৭ রানের সরাসরি বোল্ড হন বাংলাদেশ অধিনায়ক। ব্যক্তিগত ২১ রানে উমরান মালিকের বলে বোল্ড হন বাঁহাতি এই ব্যাটার। দলের বিপদের সময় বড় শট খেলতে গিয়ে আউট হন সাকিব আল হাসান (৮)।

চলতে থাকে সাজঘরে ফেরার মিছিল। সাকিবের পর মুশফিকুর রহিম আর আফিফ হোসেনকে ফিরিয়েছেন ওয়াশিংটন সুন্দর। পরপর দুই বলে মুশফিক ও আফিফকে ফেরান ডানহাতি এই স্পিনার।

খাদের কিনার থেকে দলকে টেনে তোলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও প্রথম ওয়ানডের নায়ক মেহেদী হাসান মিরাজ। সপ্তম উইকেট বাংলাদেশের চতুর্থ শতরানের জুটি গড়েন দুজন। ক্যারিয়ারের তৃতীয় অর্ধশতক তুলেন মিরাজ। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও তুলে নেন অর্ধশতক। ডানহাতি এই ব্যাটারের এটি ২৭তম অর্ধশতক।

৯৬ বলে ৭৭ রান করা মাহমুদউল্লাহর বিদায়ে ভাঙে ১৪৮ রানের জুটি। সপ্তম উইকেটে এটি বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জুটি। এ ছাড়া যে কোনো উইকেটে ভারতের বিপক্ষেও বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জুটি।

শেষ দিকে নাসুম আহমেদকে নিয়ে মাত্র ২৩ বলে ৫৩ রানের জুটি গড়েন মিরাজ। ৮৩ বলে ক্যারিয়ারের প্রথম শতক তুলে সমান ১০০ রানের অপরাজিত থাকেন ডানহাতি এই ব্যাটার। ইনিংসে ৮টি বাউন্ডারি ও ৪টি ওভার বাউন্ডারির মার ছিল। নাসুম ১১ বলে ১৮ রান করেন।

সম্পর্কিত পোস্ট