রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

বাংলাদেশ দূতাবাস মালয়েশিয়ায় মহান স্বাধীনতা দিবস পালন

প্রকাশ: ২৬ মার্চ ২০২২ | ৬:৫৬ অপরাহ্ণ আপডেট: ২৬ মার্চ ২০২২ | ৬:৫৬ অপরাহ্ণ
বাংলাদেশ দূতাবাস মালয়েশিয়ায় মহান স্বাধীনতা দিবস পালন

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের আয়োজনে ৫১তম মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালন করা হয়েছে। শনিবার (২৬ মার্চ) হাইকমিশনার গোলাম সারওয়ারের নেতৃত্বে দিবসটি পালন করা হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন হাইকমিশনার। এরপর হাইকমিশনারের সভাপতিত্বে দূতাবাসের হলরুমে স্বাধীনতা দিবসের তাৎপর্য নিয়ে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় কাউন্সিলর (রাজনৈতিক) রুহুল আমিনের পরিচালনায় পবিত্র কুরআন থেকে তিলাওয়াত, শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন ও শহীদদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়েছে।

আলোচনা সভায় রাষ্ট্রপতির বাণী পাঠ করেন প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা কমোডর মোস্তাক আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন কাউন্সিলর (বাণিজ্যিক) মো. রাজিবুল আহসান, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন প্রথম সচিব (শ্রম) এসএম জাহিদুর রহমান ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন দ্বিতীয় সচিব (রাজনৈতিক) রেহেনা পারভীন।

বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ও ৭১-এ বাংলাদেশের প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন শেষে হাইকমিশনার মো. গোলাম সারোয়ার বলেন, ২৬ মার্চ আমাদের মহান স্বাধীনতা দিবস। ১৯৭১ সালের এ দিনে পাকিস্তানের শোষণ ও দুঃশাসন ছিন্ন করে স্বাধীন হয় বাংলাদেশ। জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতা ঘোষণার পর শুরু হয় সর্বাত্মক মুক্তিযুদ্ধ। নয়মাসের সশস্ত্র সংগ্রামের মধ্য দিয়ে ১৬ ডিসেম্বর অর্জিত হয় মহান বিজয়। প্রতিষ্ঠিত হয় স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ, স্বাধীনতার স্বাদ পায় বাংলার মানুষ। সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চার নেতা, মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লাখ শহীদ ও ২ লাখ নির্যাতিত মা-বোনদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছি।

প্রবাসীদের শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তোলার মাধ্যমেই অর্জিত হতে পারে মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার সে লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছে। আর আমাদের সামনে দিনবদলের হাতছানি নিয়ে রাষ্ট্রক্ষমতায় অধিষ্ঠিত রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সরকার। দেশের মানুষ আজ বঙ্গবন্ধুর অসাম্প্রদায়িক সোনার বাংলা গড়ে তোলার আকাঙ্ক্ষায় উজ্জীবিত।

হাইকমিশনার বলেন, অর্থনীতির আকারে বর্তমান বিশ্বে ৪০তম বাংলাদেশ। এরই মধ্যে স্বল্পোন্নত উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি দিয়েছে জাতিসংঘ। বিশ্বব্যাংক থেকে স্বীকৃতি মিলেছে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার। এসব অর্জন বাংলাদেশের সক্ষমতার পাশাপাশি মর্যাদাও বাড়িয়েছে।

গোলাম সারোয়ার বলেন, বন্ধুপ্রতীম রাষ্ট্র মালয়েশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছরে কূটনৈতিক সম্পর্ক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে। এ সম্পর্ককে আরও উন্নত করতে আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

আলোচনা সভায় ডেপুটি হাইকমিশনার খোরশেদ এ খাস্তগীর, মিনিস্টার (শ্রম) নাজমুস সাদাত সেলিম, কাউন্সিলর কন্স্যুলার জি এম রাসেল রানাসহ দূতাবাসের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে মালয়েশিয়া সরকারের দেওয়া বিধিনিষেধ মেনে অনুষ্ঠানে দূতাবাসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা-কর্মচারীর পাশাপাশি প্রবাসী কমিউনিটি ও মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠনের নেতারাও উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া দূতাবাসের ফেসবুক পেজে লাইভ প্রচার করে প্রবাসীদের অংশ নেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়।

সংলাপ-২৬/০৩/০১০/আ/আ

সম্পর্কিত পোস্ট