রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

ফিলিস্তিনকে ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আর্থিক সহায়তার ঘোষণা আরব আমিরাতের

প্রকাশ: ১১ অক্টোবর ২০২৩ | ৪:০৪ অপরাহ্ণ আপডেট: ১১ অক্টোবর ২০২৩ | ৪:০৪ অপরাহ্ণ
ফিলিস্তিনকে ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আর্থিক সহায়তার ঘোষণা আরব আমিরাতের

ফিলিস্তিনকে ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আর্থিক সহায়তার ঘোষণা দিয়েছে উপসাগরীয় আরব রাষ্ট্র আরব আমিরাত।

মঙ্গলবার (১০ অক্টোবর) মানবিক সহায়তা স্বরূপ ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আর্থিক সহায়তা প্রদানের ঘোষণা দেন দেশটির প্রেসিডেন্ট শেখ মুহাম্মদ বিন যায়েদ আল নাহিয়ান।

আরব আমিরাতের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমের তথ্যমতে, ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের নিয়ে কাজ করা জাতিসংঘের ত্রাণ সহায়তা সংস্থা ‘ইউএনআরডব্লিউএ’ এর মাধ্যমে এই সাহায্য ফিলিস্তিনে পাঠানো হবে।

বিশ্বব্যাপী অসহায়, আক্রান্ত ও শরণার্থীদের আরব আমিরাত কর্তৃক জরুরী সহায়তার অংশ হিসেবে ফিলিস্তিনেও আর্থিক সহায়তা পাঠানো হচ্ছে বলে জানানো হয় সংবাদমাধ্যমে।

উল্লেখ্য, ফিলিস্তিনিদের উপর ইহুদিবাদী অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের ক্রমাগত নিপীড়ন, মসজিদে আকসার মতো পবিত্র স্থানগুলোতে সন্ত্রাসী তাণ্ডব ও বর্বরতার প্রতিবাদে, স্বাধীনতা ও ন্যায্য অধিকারের দাবীতে গত ৭ অক্টোবর অপারেশন আকসা ফ্লাড শুরু করে স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস।

এই হামলার জবাবে ইহুদিবাদী অবৈধ রাষ্ট্রটি ৮ অক্টোবর যুদ্ধের ঘোষণা দেয় এবং অবরুদ্ধ গাজ্জার ২০০ এর অধিক স্থাপনাকে টার্গেট করে বিমান হামলা চালায়। আজ ৪র্থ দিনে গড়ানো এই যুদ্ধে অবৈধ রাষ্ট্রটি হামলার মাত্রা আরো বাড়িয়ে দিয়েছে বলে জানা যায়। এতই বর্বরতায় মেতে উঠেছে যে, পূর্ব ঘোষণা ছাড়ায় গাজ্জার বাড়িঘরে বিমানে করে বোমা হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। আহত ও রোগীদের নিয়ে যাওয়ার সময় ফিলিস্তিনি এম্বুলেন্সগুলোকে নিজেদের লক্ষ্যবস্তু বানাচ্ছে। ৪টি মসজিদ ২টি আমেরিকান স্কুল সহ বেশ কয়েকটি হাসপাতাল গুড়িয়ে দিয়েছে।

এছাড়া সাংবাদিকদেরও নিজেদের আক্রমণের নিশানা বানাচ্ছে অবৈধ রাষ্ট্রটির সন্ত্রাসী সেনারা। তাদের হামলায় এখন পর্যন্ত ফিলিস্তিনের ৭জন স্থানীয় সাংবাদিক ও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার ৩জন সাংবাদিকের মৃত্যু হয়েছে।

গাজ্জা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে, ইসরাইলের হামলায় এখন পর্যন্ত যাদের মৃত্যু হয়েছে তন্মধ্যে নারী ও শিশুর সংখ্যাই রয়েছে ২২০ এর অধিক।

৯ অক্টোবর জাতিসংঘের প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, গাজায় এখন পর্যন্ত ১লক্ষ ৩০ হাজার মানুষ তাদের ঘরবাড়ি হারিয়ে বাস্তুচ্যুত হয়ে পড়েছেন।

সম্পর্কিত পোস্ট