শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১

কারাগারে প্রেমিক, সেফ হোমে প্রেমিকা

প্রেম, বিয়ে অতঃপর স্বেচ্ছায় কারাভোগের সিদ্ধান্ত

প্রকাশ: ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ২:৪২ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ২:৪২ পূর্বাহ্ণ
প্রেম, বিয়ে অতঃপর স্বেচ্ছায় কারাভোগের সিদ্ধান্ত

নবীগঞ্জে প্রেমের টানে ঘর থেকে বের হয়ে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েও শেষ পর্যন্ত ঘর বাঁধা হলো না এক প্রেমিক যুগলের। বর্তমানে প্রেমিকের ঠাঁই হয়েছে কারাগারে আর প্রেমিকা গেলেন সেফ হোমে।

গত মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকালে উক্ত প্রেমিক যুগল জাহিদ হাসান ও সুমাইয়া ফেরদৌসি লিসা নবীগঞ্জ থানায় হাজির হয়ে স্বেচ্ছায় কারাভোগের সিদ্ধান্ত জানান। থানার তদন্ত কর্মকর্তা তাদের জবানবন্দি শুনে জাহিদকে মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে কারাগারে প্রেরণ করে। অপরদিকে আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দির প্রেক্ষিত্রে সুমাইয়াকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে বয়স নির্ধারণের জন্য প্রেরণ করা হয়। সেখানে ডাক্তারি পরীক্ষা শেষে তাকে সিলেট সেইফ হোমে প্রেরণের নির্দেশ প্রদান করা হয়।

জানা গেছে, নবীগঞ্জ উপজেলার নাদামপুর এলাকার মৃত আব্দুল মতিন খানের মেয়ে সুমাইয়া ফেরদৌসি লিসা (১৮) দীর্ঘদিন ধরে পৌর এলাকার রাজাবাদ গ্রামের ফরহাদ মিয়ার ছেলে জাহিদ হাসান (২১) এর সাথে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে উঠে। এই খবর সুমাইয়ার পরিবার জানার পর বিপত্তি শুরু হয়। পরিবার তাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে অন্যত্র বিয়ে দেওয়ার জন্য নানাকৌশল করলে গত ৬ সেপ্টেম্বর বিকালে সুমাইয়া তার প্রেমিকের হাত ধরে ঘর থেকে বেরিয়ে যায়। এ ঘটনায় সুমাইয়ার মা বাদী হয়ে নবীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার খবর পেয়ে এই যুগল স্বেচ্ছায় থানায় হাজির হয়।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই সম্রাট জানান, জাহিদ-সুমাইয়া যুগল মঙ্গলবার ভোরে পালিয়ে যাবার সময় স্থানীয় নতুন বাজার (গাজীর টেক) এলাকা থেকে তাদের আটক করে জাহিদকে মামলায় আদালতে প্রেরণ করা হয়। সুমাইয়াকে ডাক্তারি পরীক্ষা ও আদালতে জবানবন্দি প্রদানের জন্য হবিগঞ্জ প্রেরণ করা হয়েছে।

সম্পর্কিত পোস্ট