বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১

ন্যায়-নিষ্ঠার ক্ষেত্রে বাংলাদেশিরা সেরা: ইউএস সিনেট লিডার

প্রকাশ: ৫ মার্চ ২০২২ | ৮:০৮ অপরাহ্ণ আপডেট: ৫ মার্চ ২০২২ | ৮:০৮ অপরাহ্ণ
ন্যায়-নিষ্ঠার ক্ষেত্রে বাংলাদেশিরা সেরা: ইউএস সিনেট লিডার

ইউএস সিনেটের লিডার চাক শ্যুমার বলেছেন, কমিউনিটি হিসেবে আমি সর্বদা বাংলাদেশিদের পছন্দ করি। কারণ, বাংলাদেশিরা হচ্ছেন ন্যায়-নিষ্ঠার ক্ষেত্রে সেরা এবং আমেরিকান স্বপ্নের অনন্য উদাহরণ। বাংলাদেশ থেকে আসা লোকজন এই আমেরিকার উন্নয়নে কঠোর শ্রম দিচ্ছেন। নিষ্ঠার সাথে কাজ করে ছোট-মাঝারি বহু ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক হয়েছেন। এই সিটির ক্যাব (ট্যাক্সি) ড্রাইভারের বড় একটি অংশ হচ্ছেন বাংলাদেশি। তারা যাতে অধিক উপার্জনে সক্ষম হন সে জন্য আমি সব সময় সরব থাকি। কারণ, আমার শশুর ক্যাব ড্রাইভার ছিলেন। তাই আমি জানি কতটা কষ্ট করতে হয় ড্রাইভারদের। আমার বাবা ছিলেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। তাকেও সারাটি জীবন কঠোর শ্রম দিতে হয়েছে। প্রতিনিয়ত নানা পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়েছে।

৪ মার্চ শুক্রবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্কে ‘জ্যাকসন হাইটস বাংলাদেশি বিজনেস এসোসিয়েশন’র (জেবিবিএ) অভিষেক উৎসবে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

নিউইয়র্ক থেকে নির্বাচিত ডেমক্র্যাটিক পার্টির সিনেটর চাক শ্যুমার ইউএস সিনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা হিসেবে বলেন, বাংলাদেশিদের মত শান্তিপ্রিয় এবং কঠোর পরিশ্রমী লোকজন আরো বেশী করে যুক্তরাষ্ট্রে আসার সুযোগ পায়-এমন পদক্ষেপ আমরা নিচ্ছি।

সিনেটর বলেন, ভিন্ন ভাষা এবং কালচারের লোক হওয়া সত্বেও অনেক দূর থেকে আপনারা এই আমেরিকায় এসেছেন কারণ, আপনারা নিজের জীবনকে সুখ-সমৃদ্ধিতে ভরে তুলতে চান এবং সন্তানদের ভবিষ্যত সুন্দর করতে চান। আর এজন্য সকলকে অনেক বেশী শ্রম ও মেধার বিনিয়োগ ঘটাতে হচ্ছে। এর মধ্য দিয়েই আপনারা জ্যাকসন হাইটসকে উন্নত করছেন, কুইন্সকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিচ্ছেন, নিউইয়র্ককে উন্নত থেকে উন্নতর করছেন। এভাবেই আমেরিকাকেও উন্নত করছেন।

সিনেটর শ্যুমার বলেন, করোনায় বিপর্যস্ত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ঘুরে দাঁড়াতে আমি পিপিপি (পেচেক প্রটেকশন প্রোগ্রাম) লোন বিল লিখেছি এবং সিনেটে তা পাশ হয়েছে। এর লোন কখনোই ফেরৎ দিতে হবে না যদি শর্ত অনুযায়ী ব্যয় করা হয়। আমার ধারণা, বাংলাদেশীরাও সেই অর্থ-সহায়তা পেয়েছেন। এ সময় সকলেই জানান যে, তারা সেই অর্থ পেয়েছেন।

বাংলাদেশি আমেরিকান নুসরাত চৌধুরীকে ফেডারেল জজ হিসেবে নিয়োগের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে সিনেটর চাক শ্যুমার বলেন, কঠোর পরিশ্রমী বাংলাদেশিদের কল্যাণে আমি সবকিছু করতে বদ্ধ পরিকর।

গুলশান টেরেস মিলনায়তনের এ উৎসবে জেবিবিএর নয়া কমিটি (২০২২-২০২৪)’র কর্মকর্তাগণকে সিনেটরের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন এই সংগঠনের সেক্রেটারি ফাহাদ সোলায়মান। এ সময় মঞ্চে ছিলেন ডেমক্র্যাটিক পার্টির ডিস্ট্রিক্ট লিডার ও জেবিবিএর উপদেষ্টা এটর্নী মঈন চৌধুরী, সভাপতি হারুন ভূইয়া, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মুনসুর চৌধুরী, ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ আলম নমী এবং মোহাম্মদ আজাদ, কোষাধ্যক্ষ সেলিম হারুন, উপদেষ্টা মঈনুল ইসলাম, ডাক্তার তৌহিদ শিবলী, সারোয়ারুজ্জামান চৌধুরী, মীর নিজামুল হক প্রমুখ।

বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার প্রতিনিধিত্বকারি বিপুলসংখ্যক প্রবাসীর এ সমাবেশে স্টেট এ্যাসেম্বলীওম্যান ক্যাটালিনা ক্রুজ এবং জেসিকা গঞ্জালেজ, সিটি কাউন্সিলম্যান শেখর কৃষ্ণানন, কমিউনিটি বোর্ড মেম্বার বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মুকিত চৌধুরী, কমিউনিটি বোর্ড মেম্বার আব্দুর রহিম হাওলাদার, মোহাম্মদ আলী, আহসান হাবিব প্রমুখ শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন।

উল্লেখ্য, তিন ভাগে বিভক্ত জেবিবিএর আরেক অংশের অভিষেক উৎসব হয়েছে মাসখানেক আগে। সেখানে প্রধান অতিথি ছিলেন নিউইয়র্ক সিটি মেয়র এরিক এডামস। অপর গ্রুপের অভিষেকের তারিখ এখনও স্থির হয়নি। এমন বিভক্তির প্রতি ইঙ্গিত করে এই সমাবেশে বক্তব্যকালে এলাকার এ্যাসেম্বলীওম্যান ক্যাটালিনা ক্রুজ বলেছেন যে, এটাই হচ্ছে রিয়েল জেবিবিএ।

সংলাপ ০৫/০৩/০০৭ আজিজ

সম্পর্কিত পোস্ট