শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১

দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ: ১৩ মার্চ ২০২২ | ১:২৮ অপরাহ্ণ আপডেট: ১৩ মার্চ ২০২২ | ১:২৮ অপরাহ্ণ
দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংযুক্ত আরব আমিরাতে পাঁচ দিনের সরকারি সফর শেষে শনিবার রাতে দেশে ফিরেছেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম বলেন, ‘বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের (বিজি-১৩০২) একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে আজ রাত ১২টা ১০ মিনিটে (স্থানীয় সময়) হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।’

এর আগে প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের বহনকারী বিমানটি শনিবার বিকেল ৫টা ৫৫ মিনিটে (স্থানীয় সময়) আবুধাবি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করে। সংযুক্ত আরব আমিরাতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. আবু জাফর প্রধানমন্ত্রীকে বিমানবন্দরে বিদায় জানান। খবর বাসসের।

আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুমের আমন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী গত ৭ মার্চ উপসাগরীয় দেশটিতে পৌঁছান। সফরকালে বাংলাদেশ ও আমিরাতের মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধির জন্য পাঁচটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়েছে। এছাড়া শেখ হাসিনা এবং শেখ মাকতুম দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেছেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন।

আমিরাতে অবস্থানকালে প্রধানমন্ত্রী গত ৮ মার্চ দুবাই প্রদর্শনী কেন্দ্র পরিদর্শন করেন এবং আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে একটি উচ্চ পর্যায়ের প্যানেল আলোচনায় যোগ দেন। পরে তিনি ডিইসিতে বাংলাদেশ প্যাভিলিয়ন ও ইউএই প্যাভিলিয়ন পরিদর্শন করেন। তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আয়োজিত নৈশভোজে অংশ নেন।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রী সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাংলাদেশের ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদলের যৌথ আয়োজনে বিজনেস ফোরামে যোগ দেন। ১১ মার্চ তার সফরের শেষ দিনে শেখ হাসিনা প্রবাসী বাংলাদেশি সম্প্রদায় আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনায় যোগ দেন। এ সময় তিনি রাস আল খাইমায় বাংলাদেশ ইংলিশ প্রাইভেট স্কুল অ্যান্ড কলেজের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

নাগরিক সংবর্ধনায় বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী প্রবাসীদের জন্য আওয়ামী লীগ সরকারের দেওয়া নানা সুযোগ-সুবিধার কথা তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, বিমানবন্দরে প্রবাসীদের হয়রানি কমাতে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। এ ছাড়া শাহজালাল বিমানবন্দরে অনেক বেশি ফ্লাইট আসা-যাওয়া করে। তাই তৃতীয় টার্মিনাল তৈরি করা হচ্ছে। এটা হয়ে গেলে আর কোনো সমস্যা থাকবে না।

প্রবাসীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, গত ১৩ বছরে বাংলাদেশের পরিবর্তনটা আপনারা দেখেছেন। এ সময় টানা গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত ছিল এবং আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় ছিল বলেই দেশের এই উন্নতি।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে কোনো মানুষ ভূমিহীন থাকবে না। যারা ভূমিহীন তাদের সরকার দুই কাঠা করে জমি দিয়ে ঘরবাড়ি তৈরি করে দিচ্ছে। তাদের এখন অসহায় হয়ে ঘুরে বেড়াতে হয় না। প্রতিটি মানুষের জীবনমান উন্নত করার ব্যবস্থা সরকার নিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল করা হচ্ছে। সেখানে প্রবাসীদের বিনিয়োগের জন্য বিশেষ সুবিধা ও প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, রেমিট্যান্সে আমরা প্রণোদনা দিয়েছি। কেউ যদি বিদেশে কাজ করতে আসেন, ঘরবাড়ি বিক্রি করা বা বন্ধক রাখার দরকার হবে না। প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে বিদেশে আসতে পারেন। এই প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের মাধ্যমেই আপনার ঋণ পরিশোধ করতে পারেন। রেমিট্যান্সও পাঠাতে পারেন।

সম্পর্কিত পোস্ট