মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১

রাষ্ট্রদূত খন্দকার এম তালহা

‘দেশের স্বার্থবিরোধী কর্মকান্ডের বিষয়ে সজাগ থাকতে হবে’

প্রকাশ: ২৭ মার্চ ২০২২ | ৯:৫০ অপরাহ্ণ আপডেট: ২৭ মার্চ ২০২২ | ৯:৫০ অপরাহ্ণ
‘দেশের স্বার্থবিরোধী কর্মকান্ডের বিষয়ে সজাগ থাকতে হবে’

প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার আলোকে কাজ করা এবং দেশের স্বার্থবিরোধী কর্মকান্ডের বিষয়ে সজাগ থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন ফ্রান্সে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত খন্দকার এম তালহা। মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের ৫১তম বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে প্যারিসে বাংলাদেশ দূতাবাস কর্তৃক আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশ আজ রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে অর্থনৈতিক, সামাজিক ও পরিবেশগত সূচকে অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জন করেছে। যার ফলে বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে আজ একটি মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে সুপরিচিত হবার সম্মান লাভ করেছে। এ সময় তিনি রূপকল্প-২০৪১ বাস্তবায়নে প্রবাসীদের একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে প্রবাসী বাংলাদেশি, সামাজিক ও রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠানের নেতাকর্মী, সাংবাদিক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেন।

সকালে রাষ্ট্রদূত খন্দকার এম তালহা দূতাবাস প্রাঙ্গণে জাতীয় সংগীত সহযোগে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন। দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যদের উপস্থিতিতে সমবেত কণ্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশিত হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই কুরআন থেকে তেলাওয়াত এবং মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা ওয়াহিদূর রহমান। দিবসটি উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করা হয়।

এরপর জাতির পিতা পরিবার ও মুক্তিযুদ্ধের শহিদদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয়। এ সময় দেশ ও জাতির সার্বিক উন্নতি ও মঙ্গল কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। শহিদের আত্মত্যাগের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

দূতাবাসের দ্বিতীয় সচিব মো. ওয়ালিদ বিন কাসেমের সঞ্চালনায় সুবর্ণ জয়ন্তী পেরিয়ে স্বাধীনতা ও বাংলাদেশের উন্নয়ন অভিষ্ট বিষয়ক আলোচনা সভা শুরু হয়। এতে বক্তব্য রাখেন রাষ্ট্রদূত খন্দকার এম তালহা, ফ্রান্স আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ কাশেম, সাধারণ সম্পাদক দিলোয়ার হোসেন কয়েছ, মুক্তিযুদ্ধা জামিলুর রহমান।

রাষ্ট্রদূত তালহা তার বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রামে তার অসামান্য ও কালজয়ী নেতৃত্বের কথা পরম শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। এছাড়াও, জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ ও দূরদর্শী নেতৃত্বের কথা উল্লেখ করে বাংলাদেশের বিগত এক দশকের উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরেন।

আলোচনা সভা শেষে প্যারিসের স্থানীয় সাংস্কৃতিক সংগঠন স্বরলিপির শিল্পীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়।

সংলাপ-২৭/০৩/০১৩/আ/আ

সম্পর্কিত পোস্ট