মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১

দর্শকপূর্ণ ম্যাচে বাংলাদেশের জয়

প্রকাশ: ৩ মার্চ ২০২২ | ৬:৪৪ অপরাহ্ণ আপডেট: ৩ মার্চ ২০২২ | ৬:৪৪ অপরাহ্ণ
দর্শকপূর্ণ ম্যাচে বাংলাদেশের জয়

সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে বৃহস্পতিবার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আফগানদের বিপক্ষে ৬১ রানে জয় পেয়েছে স্বাগতিকরা। শুরুতে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৫৫ রানের সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। আফগানদের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে এটাই বাংলাদেশের সর্বোচ্চ স্কোর। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৯৪ রান তুলতেই সব উইকেট হারান আফগানরা।

জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়ে মাত্র ২০ রানেই ৪ উইকেট হারায় আফগানরা। চারটি উইকেটই তুলে নেন বাঁহাতি স্পিনার নাসুম আহমেদ। এরপর আর ম্যাচে ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি সফরকারীরা।

নাসুমের বল যেন বুঝতেই পারছিলেন না হজরতউল্লাহ জাজাই। প্রথম বলটি ঠেকালেন, পরের বলটিতেই ক্যাচ তুলে দিয়েছিলেন গুরবাজ। তবে ভাগ্যক্রমে বলটি পড়ে নোম্যান্স ল্যান্ডে। পরের বলটি লংঅনে ঠেলে দেন রহমতউল্লাহ গুরবাজ। চতুর্থ বলে কাভার দিয়ে বল বের করতে গিয়ে ইয়াসির আলীর তালুবন্দি হন রহমতউল্লাহ গুরবাজ। দলীয় ১ রানেই প্রথম উইকেট হারায় আফগান।

পরের ওভারে হজরতউল্লাহ জাজাইও ফিরতে পারতেন। মাহেদি হাসানের বলে কভার পয়েন্টে থাকা মুনিম শাহরিয়ার জাজাইয়ের ক্যাচ ফেলে দেন। তবে দুই দুইবার জীবন পাওয়া জাজাই তৃতীয় ওভারের প্রথম বলে ফেরেন মোহাম্মদ নাঈমের হাতে ক্যাচ দিয়ে। এর এক বল পরেই দারউইশ রাসুলি নাসুমকে সুইপ করতে গিয়ে হন বোল্ড। এতেই মাত্র ৮ রানে তিন উইকেট হারায় বাংলাদেশ।

রের ওভারে মোস্তাফিজুর রহমানের বলে ক্যাচ তুলে দিয়েছিলেন নাজিবুল্লাহ জাদরান। তবে উইকেটের পেছনে লাফিয়ে পড়েও বলের নাগাল পাননি লিটন দাস। এদিকে নিজের তৃতীয় ওভারে বল হাতে এসে আবারও আঘাত হানলেন নাসুম। এবারে তার শিকার করিম জানাত।

৫ম ওভারের তৃতীয় বলে মাহেদি হাসানের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে মাত্র ৬ রান করে ফিরলেন জানাত। চেয়েছিলেন এক্সট্রা কাভার অঞ্চল দিয়ে বল বাইরে পাঠাতে কিন্তু মাহেদি সুযোগ হাতছাড়া করেননি। এতেই মাত্র ২০ রানে চতুর্থ উইকেট হারায় আফগানরা।

এক বল বিরতিতে নাসুম তুলে নিয়েছিলেন মোহাম্মদ নবীকেও। কিন্তু এ যাত্রায় রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান আফগান অধিনায়ক।

এদিকে দীর্ঘ অনেক দিন পর মিরপুর শেরে বাংলা স্টেড়িয়ামের গ্যালারিতে দর্শক ছিল ভরপুর।

সংক্ষিপ্ত স্কোরকার্ড

বাংলাদেশ: ২০ ওভার; ১৫৫/৮; (মুনিম ১৭, নাঈম ২, লিটন ৬০, সাকিব ৫, মাহমুদউল্লাহ ১০, আফিফ ২৫, ইয়াসির ৮, মাহেদি ৫, নাসুম ৩, শরিফুল ৪); (ফজলহক ৪-০-২৭-২, মুজিব ৩-০-২৪-০, রশিদ ৪-০-১৫-১, নবী ২-০-১৯-০, কায়েস ২-০-২১-১, ওমরজাই ৪-০-৩১-২, জানাত ১-০-৫-০)।

আফগানিস্তান: ১৭.৪ ওভার; ৯০/১০; (হজরতউল্লাহ ৬, রহমতউল্লাহ ০, রাসুলি ২, নাজিবুল্লাহ ২৭, জানাত ৬, নবী ১৬, ওমরজাই ২০, রশিদ ১, কায়েস ৮, মুজিব ৪, ফজলহক ০*); (নাসুম ৪-০-১০-৪, মাহেদি ৩-০-১৭-০, মোস্তাফিজ ৩-০-১৯-১, শরিফুল ৩.৪-০-২৯-৩, সাকিব ৪-০-১৮-২)।

সংলাপ ০৩/০৩/০০৬ আজিজ

সম্পর্কিত পোস্ট