সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১

ডুবে যাওয়া ফেরীটি ছিলো মেয়াদউত্তীর্ণ

প্রকাশ: ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ২:০২ অপরাহ্ণ আপডেট: ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ২:০২ অপরাহ্ণ
ডুবে যাওয়া ফেরীটি ছিলো মেয়াদউত্তীর্ণ

পাটুরিয়া ফেরী ঘাটে ডুবে যাওয়া ফেরীটি ছিলো মেয়াদউত্তীর্ণ। ফেরিটি ৪০ বছরের বেশি পুরোনো ছিল। কিন্তু যানবাহন পারাপারে সংকট মোকাবিলায় ঝুঁকি নিয়ে ফেরিটি চালু রাখা হয়েছিল বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিআইডব্লিউটিসির এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। ফেরী থেকে নিরাপদে নেমে যেতে পারা যাত্রীরা বলছে, ঘাট ছাড়ার পর থেকেই কাত হয়ে চলছিল ফেরিটি। মাঝ পদ্মায় আসতেই পানি উঠতে শুরু করে। পাটুরিয়া ঘাটে পৌঁছার আগেই ফেরিতে পানি উঠে পায়ের গোড়ালি ডুবে যায়। ফেরিটি ডুবে যাওয়ার আগমুহূর্তে নদীতে লাফিয়ে পড়েন অনেক কাভার্ডভ্যান ও ট্রাক ড্রাইবার। পরে সাঁতরে তীরে ওঠেন।

গতকাল বুধবার সকালে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া থেকে ছেড়ে আসা রো রো (বড়) ফেরি আমানত শাহ মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে এসে যানবাহনসহ ডুবে যায়। এ সময় ফেরিটিতে ১৭টি পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান এবং ১৬টি মোটরসাইকেল ছিল। তাছাড়াও ফেরিটিতে শতাধিক মানুষ ছিলেন বলে জানা যায়। তবে দুর্ঘটনায় কোন হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

সরেজমিনে প্রত্যক্ষদর্শী ও ঘাট-সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গতকাল সকাল নয়টার দিকে দৌলতদিয়ার ৫ নম্বর ঘাট থেকে যানবাহনবোঝাই আমানত শাহ ছেড়ে যায়। মাঝপথে আসার পরপরই ফেরির সামনের বাঁ দিক থেকে পানি উঠতে শুরু করে। সকাল পৌনে ১০টার দিকে মানিকগঞ্জের পাটুরিয়ার ৫ নম্বর ঘাটের পন্টুনে ভেড়া মাত্রই ফেরিতে থাকা পণ্যবাহী তিনটি ট্রাক দ্রুত নেমে যায়। এ সময় আরেকটি ট্রাক নামতে গেলে ফেরিটি এক পাশে কাত হয়ে যায় এবং ট্রাকটিও নদীতে পড়ে যায়। এর পরপরই অন্যান্য যানবাহন নিয়ে পন্টুনের কাছে পদ্মায় ডুবে যায় ফেরিটি। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বিআইডব্লিউটিএর উদ্ধারকারী জাহাজ হামজা ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। এরপর উদ্ধারকাজ শুরু হয়। একই সঙ্গে মানিকগঞ্জ থেকে ফায়ার সার্ভিসের একটি ডুবুরি দল অনুসন্ধানের কাজ শুরু করে। এরপর স্থানীয় জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের পাশাপাশি ঢাকা থেকে ফায়ার সার্ভিস, নৌবাহিনী, কোস্টগার্ডের ডুবুরি দল এসে উদ্ধারকাজ শুরু করে।

একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, ফেরিতে পানি উঠতে দেখে স্টাফসহ যানবাহনের চালক ও যাত্রীরা চিৎকার শুরু করেন। পরে ফেরির মাস্টার ইঞ্জিনের গতি বাড়িয়ে দেন। অল্প সময়ের মধ্যে ফেরিটি পাটুরিয়ার ৫ নম্বর ঘাটে পৌঁছায়। পন্টুনের সঙ্গে রশি বাঁধার আগেই ফেরির ডালা নামিয়ে দেওয়া হয়। এ সময় তিনটি ট্রাক ফেরি থেকে নেমে যায়। আরেকটি ট্রাক অর্ধেকটা নামার পরই ফেরি কাত হয়ে যায়। এ সময় ট্রাকটি পন্টুন থেকে নদীতে পড়ে যায়। একই সঙ্গে ফেরিতে থাকা পণ্যবাহী যানগুলো একটার ওপর আরেকটা উঠে পড়ে। একসময় ট্রাক ও মোটরসাইকেলগুলো নদীতে পড়ে যায়।

দুপুরে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসেন নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সাবেক নৌমন্ত্রী মো. শাজাহান খান, বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান সৈয়দ তাজুল ইসলাম, বিআইডব্লিউটিএর ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো. নূরুল আলম প্রমুখ। এর আগে থেকে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন মানিকগঞ্জের জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আবদুল লতিফ, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খান, নৌ পুলিশের ফরিদপুর অঞ্চলের পুলিশ সুপার মো. জসিম উদ্দিনসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

উদ্ধারকারী জাহাজ হামজা সন্ধ্যা পর্যন্ত দুটি পণ্যবাহী ট্রাক উদ্ধার করে। এ ছাড়া ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল একটি মোটরসাইকেল নদী থেকে উদ্ধার করে। তবে এ সময় পর্যন্ত হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। গতকাল রাত সোয়া আটটার দিকে উদ্ধারকাজের সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে। আজ সকালে পুনরায় উদ্ধারকাজ শুরু করা হবে বলে বিআইডব্লিউটিসির সদস্য (পরিকল্পনা ও পরিচালন) মো. দেলোয়ার হোসেন জানিয়েছেন।

সম্পর্কিত পোস্ট