রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ৯ আশ্বিন ১৪৩০

দুবাইয়ে কৃষিমন্ত্রী

কৃষিকে লাভজনক করতে রপ্তানি বাড়াতে হবে

প্রকাশ: ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২২ | ১১:১৪ অপরাহ্ণ আপডেট: ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২২ | ১১:৩৩ অপরাহ্ণ
কৃষিকে লাভজনক করতে রপ্তানি বাড়াতে হবে

দেশের কৃষিখাতকে লাভজনক করে তুলতে কৃষি পণ্য বিদেশে রপ্তানি বাড়ানোর আহবান জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক। দুবাইয়ে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের সাথে এক মতবিনিময় অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এই আহবান জানান। সোমবার রাতে দুবাইস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল বিএম জামাল হোসেনের পরিচালনায় মতবিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কৃষিমন্ত্রী।

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমরা বাংলাদেশকে পুষ্টি জাতীয় ও নিরাপদ খাবারের নিশ্চয়তা দিতে চাই। এজন্য মানুষের আয় বাড়াতে হবে। কৃষিকে আরও লাভজনক করতে হবে। লাভজনক করতে হলে কৃষি পণ্যের দাম বাড়াতে হবে এবং কৃষিপণ্য রপ্তানি করতে হবে। এতে করে চাষীরা লাভবান হবেন। তাদের ক্রয় ক্ষমতাও বাড়বে। ধীরে ধীরে মানুষের জীবনযাত্রার মান বৃদ্ধি হবে।

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এখন দানাদার খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। দেশে বর্তমানে ১ কোটি ১০ লাখ টন আলু উৎপাদন হয়। গ্রামাঞ্চলে আগে ১ বিঘা জমিতে ৮-৯ মণ আলু হতো সেখানে এখন একশ ৩০ মণ আলু হয়। দেশে এখন টিউলিপের চাষ হচ্ছে, স্ট্রবেরি, ড্রাগন ফুড ও মাল্টার চাষ হচ্ছে। বাংলাদেশের অভূতপূর্ব উন্নয়ন বিদেশেও আজকে প্রশংসিত। এই উন্নয়নের গতি বাড়াতে চাই। আরও বেগবান করতে চাই। এক্ষেত্রে আমি আপনাদের সহযোগিতা চাই।

ব্যবসায়িরা আরব আমিরাতে আগর কাঠ, আলু, আম ও কলার রপ্তানি চাহিদা থাকার কথা উল্লেখ করলে মন্ত্রী বলেন, আমি স্বপ্ন দেখি, কৃষিপণ্য বিদেশে রপ্তানি করার। দেশের বাইরে আগরের যে এত চাহিদা ও সম্ভাবনা আছে এটি জানতাম না। প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি, দেশে ফিরেই আগর গাছ বাড়ানোর ব্যবস্থা গ্রহণ করব। তা খুব বেশি দিন লাগবে না।

মতবিনিময়কালে কৃষিপণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে দুবাইয়ের সঙ্গে সমুদ্র পথে সরাসরি যোগাযোগ ব্যবস্থা স্থাপনের দাবি করেন ব্যবসায়ীরা। এই প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, কলম্বো বা সিঙ্গাপুর নয় সরাসরি সংযুক্ত আরব আমিরাতে জাহাজ পাঠানোর ব্যাপারে চিন্তা শুরু করেছে বাংলাদেশ। সরাসরি সমুদ্র পথে যোগাযোগ শুরু হলে সবার আগে দুবাইতেই জাহাজ পাঠাবো।

এসময় রাজনৈতিক প্রসঙ্গ টেনে কৃষিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সবসময় ষড়যন্ত্র ছিল। জামায়ত-বিএনপি এখন আবার দেশে উচ্ছৃঙ্খলা করার চেষ্টা করছে। আগে গাড়িতে আগুন দিয়েছে। মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করেছে। বাসের মধ্যে বসে থাকা যাত্রীদের পোড়ানো কত বড় নির্মমতা, বর্বরতা, পৈশাচিকতা। বাংলাদেশে আবার সেই পৈশাচিকতার মহড়া চলছে। নানান ধরনের ষড়যন্ত্র চলছে।

বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল বিএম জামাল হোসেন

বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল বিএম জামাল হোসেনের বাসভবনে আয়োজিত এই মতবিনিময় অনুষ্ঠানে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: সায়েদুল ইসলাম, খাদ্যসচিব মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম ছাড়াও ব্যবসায়িক নেতা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও গণমাধ্যমকর্মীসহ শতাধিক বাংলাদেশি উপস্থিত ছিলেন।

সম্পর্কিত পোস্ট