মঙ্গলবার, ৩০ মে ২০২৩, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০

কবিগুরুর জন্মদিনে প্রবাসীদের আয়োজনে ‘আজ সন্ধ্যায় রবীন্দ্রনাথ’

প্রকাশ: ১৫ মার্চ ২০২২ | ৫:২১ অপরাহ্ণ আপডেট: ১৫ মার্চ ২০২২ | ৫:২১ অপরাহ্ণ
কবিগুরুর জন্মদিনে প্রবাসীদের আয়োজনে ‘আজ সন্ধ্যায় রবীন্দ্রনাথ’

আগামী ৭ মে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬২তম জন্মদিন উপলক্ষে কানাডার ক্যালগেরিতে বাংলাদেশি প্রবাসীদের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ‘আজ সন্ধ্যায় রবীন্দ্রনাথ’ শীর্ষক একটি সঙ্গীত সন্ধ্যা।

আয়োজনকে ঘিরে ক্যালগেরি শহরের অদূরে রকিভিউ কাউন্টির সীমানা পেরিয়েতে একটি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এতে উপস্থিত ছিলেন সাইফুল ইসলাম রিপন, খায়ের খোন্দকার রুবেল, তীর্থ সাহা, রীতা কর্মকার এবং মো. মাহমুদ হাসান। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন- অনুষ্ঠানের গ্র্যান্ড স্পন্সর ইকবাল রহমান এবং মিডিয়া পার্টনার আলবার্টার প্রথম বাংলা পোর্টাল প্রবাস বাংলা ভয়েসের প্রধান সম্পাদক আহসান রাজীব বুলবুল।

সংবাদ সম্মেলনে অনুষ্ঠান সূচি ও লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন খায়ের খোন্দকার রুবেল। তিনি বলেন, বহু প্রতিভার অধিকারী একাধারে কবি, প্রাবন্ধিক, ঔপন্যাসিক, নাট্যকার, সঙ্গীতজ্ঞ ও গল্পকার রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬২তম জন্মদিন উপলক্ষে আগামী ৭ মে আমরা একটি সঙ্গীত সন্ধ্যার আয়োজন করছি। এতে সঙ্গীত পরিবেশন করবেন ক্যালগেরির রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী তীর্থ সাহা ও রিতা কর্মকার।

অনুষ্ঠানে সাইফুল ইসলাম রিপন বলেন, বাংলা সাহিত্যের উজ্জ্বল নক্ষত্র রবীন্দ্রনাথ এবং তার বিশাল সাহিত্য কীর্তির জন্য তিনি আমাদের রক্তস্রোতে আজও মিশে আছেন। বিশ্বকবির জীবনাদর্শ এবং সৃষ্টিকর্ম শোষণ-বঞ্চনামুক্ত অসাম্প্রদায়িক। তিনি বাংলা ও বাঙালির অহংকার। কালজয়ী এ কবি জীবন ও জগতকে দেখেছেন অত্যন্ত গভীরভাবে, যা তার কবিতা, ছোটগল্প, উপন্যাস, নাটক গীতিনাট্য, প্রবন্ধ, ভ্রমণকাহিনী, সঙ্গীত ও চিত্রকলায় উৎসারিত হয়েছে।

তিনি বলেন, করনোকালীন গত দু’বছরে আমরা সবাই কমবেশি স্বজন হারিয়েছি। প্রবাস জীবনের এই কষ্ট এখনও আমাদের বিমর্ষ রাখে, অন্যদিকে হতাশা, বঞ্চিত কর্মময় প্রবাস জীবনে একটু নির্মল আনন্দ পেতেই প্রবাসীরা বেরিয়ে আসবে, ব্যতিক্রমী এই সঙ্গীতসন্ধ্যা উপভোগ করবে, এটাই আমার বিশ্বাস।

তীর্থ সাহা বলেন, কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তার ‘হে নূতন’ গানে চির নতুনের মধ্যে দিয়ে নিজের পৃথিবীকে আগমনের শুভক্ষণকে ব্যক্ত করেছিলেন। আসুন আমরা সবাই একত্রিত হয়ে সুন্দর এই সন্ধ্যা উপভোগ করি।

রীতা কর্মকার বলেন, বিশ্বের দরবারে বাঙালিকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতেও শিখিয়েছেন কবিগুরু। যার কারণে বাঙালির অস্তিত্বে মিশে আছেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। গল্পে, উপন্যাসে, কবিতায়, সুরে ও বিচিত্র গানের বাণীতে, অসাধারণ সব দার্শনিক চিন্তাসমৃদ্ধ প্রবন্ধে, সমাজ ও রাষ্ট্রনীতিসংলগ্ন গভীর জীবনবাদী চিন্তা জাগানিয়া লেখায় এমনকি চিত্রকলায়ও রবীন্দ্রনাথ চিরনবীন। আগামী ৭ মে আমরা তুলে ধরব তার সৃজনশীলতা। আসুন সবাই উপভোগ করি এই অনুষ্ঠান।

অনুষ্ঠানের গ্র্যান্ড স্পন্সর বিশিষ্ট রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী ও কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ইকবাল রহমান বলেন, রবী ঠাকুরের জন্মজয়ন্তীর মতো এমন প্রগতিশীল ও সৃজনশীল কাজের সাথে সংযুক্ত হতে পেরে ইকবাল রিয়েল এস্টেট গর্বিত। ভবিষ্যতেও এমন সৃষ্টিশীল যেকোনো কর্মকাণ্ডে ইকবাল রিয়েল এস্টেট কমিউনিটির পাশে থাকবে।

লেখক, কলামিস্ট ও উন্নয়ন গবেষক মো. মাহমুদ হাসান বলেন, রবীন্দ্রনাথ বাঙালি সংস্কৃতি ও সত্ত্বার অনবদ্য ধারক ও অনুপ্রেরণার বাতিঘর। বাঙালি সংস্কৃতিকে বিশ্বায়নে রূপ দিতে তিনিই যুগ-যুগান্তরের শ্রেষ্ঠ রূপকার। রবী ঠাকুরের চর্চার মাধ্যমেই বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতির সর্বোচ্চ বিকাশের পথ উন্মুক্ত হতে পারে। ক্যালগেরিতে মহান হৃদয়ের কিছু রবীন্দ্রপ্রেমীর উদ্যোগ, বাঙলা আর বাঙালি সংস্কৃতিকে লালনের এক মহত্তম প্রচেষ্টা। এমন শুভ উদ্যোগের সাক্ষী হতে পারা আমার মতো মানুষের জন্য নিতান্তই গৌরবের।

সংলাপ-১৫/০৩/০০৪/আ/আ

সম্পর্কিত পোস্ট