শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

ইইউতে পোশাক রপ্তানি বেড়েছে ৩৬ শতাংশ

প্রকাশ: ১ এপ্রিল ২০২৩ | ১২:০৪ অপরাহ্ণ আপডেট: ১ এপ্রিল ২০২৩ | ১২:০৪ অপরাহ্ণ
ইইউতে পোশাক রপ্তানি বেড়েছে ৩৬ শতাংশ

২০২১ সালের তুলনায় ২০২২ সালে ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানি ৩৫.৬৯% বেড়েছে। সম্প্রতি প্রকাশিত ইউরোস্ট্যাটের এক পরিসংখ্যানের বরাত দিয়ে  তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ এ তথ্য জানিয়েছে।

পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, এ সময়ে বাংলাদেশ সেখানে ২২.৮৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের পোশাক রপ্তানি করেছে ও দ্বিতীয় বৃহত্তম রপ্তানিকারক হিসেবে নিজেদের অবস্থান বজায় রেখেছে।

এতে দেখা যায়, তালিকায় শীর্ষ অবস্থানে থাকা দেশ চীন থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের আমদানি বছরে ১৭.০১ শতাংশ বেড়েছে। ২০২২ সালে চীন থেকে ইইউর আমদানি ছিল ৩০ দশমিক ১৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

যা ২০২১ সালের ২৫.৭৬ বিলিয়ন ডলার থেকে ১৭.০১% বেড়েছে।

ইইউর তৃতীয় বৃহত্তম পোশাক আমদানির উৎস তুরস্ক থেকে পোশাক আমদানি ১০.০৯ শতাংশ বেড়েছে এবং আমদানি ১১.৯৮ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে।

ভারত ও ভিয়েতনাম থেকে ইইউর আমদানি যথাক্রমে ২১.০২ ও ৩৫% বেড়েছে।

এছাড়াও উল্লেখযোগ্য বৈশ্বিক পোশাক প্রস্তুতকারকদের মধ্যে পাকিস্তান ২০২২ সালে ২৭.৯৯% থেকে ৩.৯৪ বিলিয়ন ডলার, কম্বোডিয়া ৩৫.৩৯% থেকে ৩.৮ বিলিয়ন ডলার ও মরক্কো ৬.৭৩% থেকে ৩.১২ বিলিয়ন ডলার আমদানি বৃদ্ধি পেয়েছে।

তবে, ইউরোপীয় ইউনিয়নের শীর্ষ দশটি পোশাক সরবরাহকারীর মধ্যে বাংলাদেশ সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধির হার অর্জন করেছে।

মূল্য ছাড়াও, পোশাক সামগ্রীর ইউনিট মূল্যও প্রতি কেজিতে ১১.৯৫% বেড়ে ১৭.২৭ ডলার হয়েছে। যেখানে চীন, তুরস্ক, ভারত ও ভিয়েতনামের দাম ৪.৬% বেড়ে ২৩.০৯, ৩.১২% থেকে ২৫.৩৯, ৩.৮২% থেকে ২৩.২৭ বেড়েছে, যা যথাক্রমে ২.৯২% থেকে ৩০.৭৬ প্রতি কেজি।

বাংলাদেশের ইউনিট মূল্য এখনও শীর্ষ দশ সরবরাহকারীর মধ্যে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন, শুধুমাত্র পাকিস্তানের চেয়ে (১৪.৪৭/কেজি), তথ্যে বলা হয়েছে।

ঢাকা ট্রিবিউনের সঙ্গে আলাপকালে বিজিএমইএর পরিচালক মহিউদ্দিন রুবেল বলেন, “আমরা বলতে পারি, ইউরোপীয় ইউনিয়নে অন্যান্য দেশগুলোর তুলনায় আমরা ভালো করছি। তবে, একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো এই প্রবৃদ্ধি দেখে আসলে একজন উৎপাদনকারী হিসেবে খুব বেশি খুশি হওয়া যাবে না। এই প্রবৃদ্ধি অর্জনের পেছনে আসলে কিছু কারণ আছে।”

তিনি বলেন, “তারা ২০২২ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে। জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত তৈরি পোশাকের বাজার পরিস্থিতি ভালো ছিল। তখন চীন ও ভিয়েতনামের মতো দেশগুলোতে বিভিন্ন সময়ে লকডাউন ছিল। ফলে বাংলাদেশ সেই সুযোগ কাজে লাগাতে পেরেছে। পরে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ফলে অর্থনৈতিক অবস্থা খারাপ হতে শুরু করে এবং উৎপাদন খরচ বাড়তে থাকে এবং পণ্যের দামও বেড়ে যায়।”

বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় আরএমজি পণ্য আমদানি করে থাকে ইউরোপ। যা বিশ্বের মোট পোশাক আমদানির প্রায় এক-চতুর্থাংশ। চীন এর শীর্ষ সরবরাহকারী।

যদিও ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাজারে পোশাক রপ্তানিতে বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে ব্যবধান ক্রমশ কমছে ও বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির হার বেশি।

ইইউতে বাংলাদেশের বাজারের অংশীদারিত্ব প্রায় ২৩%, আর চীনের দখলে ২৯% এর বেশি।

নির্মাতারা বলেন, দেশের পোশাক খাত এখন সবুজ, নিরাপদ এবং পরিবেশ বান্ধব এবং দেশের পোশাক খাত পরিবেশগত সুরক্ষা, জল এবং শক্তি সঞ্চয়। শ্রমিকদের কল্যাণ সম্পর্কিত মানগুলির সাথে সঙ্গতি রেখে কাজ করে।

তারা নিশ্চিত বাংলাদেশ শিগগিরই ইউরোপে শীর্ষ রপ্তানিকারক দেশ হবে কারণ বিশ্বব্যাপী চীনের আরএমজি বাজারের শেয়ার হ্রাস পাচ্ছে কারণ তারা ধীরে ধীরে এই খাত থেকে বিদায় নিচ্ছে।

সম্পর্কিত পোস্ট