শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১

আমিরাতে মুনিরীয়ার ঈদে মিলাদুন্নবী মাহফিল

প্রকাশ: ৩১ অক্টোবর ২০২১ | ২:৪১ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ৩১ অক্টোবর ২০২১ | ২:৪১ পূর্বাহ্ণ
আমিরাতে মুনিরীয়ার ঈদে মিলাদুন্নবী মাহফিল

সংযুক্ত আরব আমিরাতে বিশ্বব্যাপী অরাজনৈতিক তরিকতভিত্তিক আধ্যাত্মিক সংগঠন মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি বাংলাদেশের আয়োজনে সর্ববৃহৎ পবিত্র জশনে জুলুসে ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার (২৯ অক্টোবর) আমিরাতের আজমান ইন্টারন্যাশনাল উইনার্স ক্লাবে এ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান মেহমান আসার পূর্বে মাহফিল প্রাঙ্গণ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে সংযুক্ত আরব আমিরাতে এটিই সর্ববৃহৎ জমায়েত।

এতে প্রধান মেহমান হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম কাগতিয়া আলীয়া গাউছুল আজম দরবার শরীফের মহান মোর্শেদ, আওলাদে রাসুল (দঃ) হযরতুলহাজ্ব আল্লামা অধ্যক্ষ শায়খ ছৈয়্যদ মহান মোর্শেদে আজম মাদ্দাজিল্লুহুল আলী ছাহেব।

ঈদে মিলাদুন্নবীর সত্যিকারের জৌলুশ খলিফায়ে রাসুল হযরত গাউছুল আজমের তরিকতে উল্লেখ করে প্রধান মেহমান বলেন, মহান আল্লাহ তায়ালা প্রিয় নবীর প্রেমেসৃষ্টি করেছেন এ পৃথিবী, মানুষকে হেদায়েত তথা শিক্ষা দানের জন্য প্রেমের নবী, নুরের নবী (দ.) কে মানবরূপে মানব জাতির কাছে পাঠিয়ে বড়ই দয়া ও অনুগ্রহ করেছেন। তিনি কোরআনের নূর তথা ফয়েজে কোরআন দিয়ে উম্মতদের অন্তরকে পরিশুদ্ধি করতেন। ওনার উত্তরসূরি হিসেবে যুগে যুগে আওলাদে রাসুল, খলিফায়ে রাসুল (দ.) অলি আল্লাহ, গাউস কুতুবগণ আসবেন। এরই ধারাবাহিকতায় কাগতিয়া আলীয়া গাউছুল আজম দরবার শরীফের প্রতিষ্ঠাতা খলিফায়ে রাসুল, হযরত গাউছুল আজম রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু কোরআনের নূর তথা ফয়েজে কোরআনের মাধ্যমে মানুষের অন্তঃকরণকে পবিত্র করে ছৈয়্যদুল মুরছালিন নবী করিম (দ.)-এর মুহাব্বত জাগ্রত করার যে ব্যবস্থাপনা দিয়েছেন তা বর্তমান বিশ্বে বিরল।

তিনি আরো বলেন, খলিফায়ে রাসুল (দ.) হযরত গাউছুল আজম রাদ্বিয়াল্লাহ আনহু প্রিয় রাসুল (দ.)-এর হুবহু পদাঙ্ক অনুসরণ করে জমিনের বুকে আল্লাহ সন্ধানী মানুষদের আল্লাহ পর্যন্ত পৌঁছে দেবার জন্য কুরআন সুন্নাহর নিরিখে আজীবন শ্রম, ত্যাগ, কুরবানি ও অশ্রুসজল ফরিয়াদে কাটিয়েছেন। উনার পবিত্র দোয়া ছিল- হে আল্লাহ! আমার তরিকতকে আরব থেকে আজমে জ্বীন থেকে ইনসানের মাঝে পৌঁছে দাও। আলহামদুলিল্লাহ উনার দোয়া আজ বাস্তব। প্রাচ্য থেকে পাশ্চাত্যে পৃথিবীর প্রায় সকল দেশে হযরত গাউছুল আজম এর দোয়ায় এই তরিকত পৌঁছে গেছে নবীর নূরের বার্তা নিয়ে। মরুভূমি জজিরাতুল আরবে আজকের মাহফিল তারই উজ্জ্বল প্রমাণ। ইনশাআল্লাহ খলিফায়ে রাসুল (দ.) হযরত গাউছুল আজম এর খুলুছিয়তের সাদকায় এই তরিকত অম্লান রবে যুগ থেকে যুগান্তর, প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তর।

এছাড়াও তিনি বঙ্গবন্ধুকন্যা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং গত ১২ রবিউল আওয়াল দরবার শরীফে অনুষ্ঠিত পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) মাহফিল, এশায়াত সম্মেলন ও ওরছে গাউছুল আজম মাহফিলে বিশেষ বাণী প্রদান করায় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। পাশাপাশি দরবার শরীফকে সার্বিক সহযোগিতা করার জন্য মোবারকবাদ জানান।

মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি বাংলাদেশ, সংযুক্ত আরবআমিরাতস্থ শাখাসমূহের উদ্যোগে আয়োজিত পবিত্র জশনে জুলুসে ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন প্রবাসী কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব আলহাজ্ব মুহাম্মদ হারুন এম. আজাদ। এতে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের শারজাহ শাখার সচিব মাওলানা মাহাবুবুল আলম বোগদাদী, রাস আল খাইমা শাখার সচিব মাওলানা জাফর আহমদ, আলহাজ্ব মুহাম্মদ নুরুল আলম, মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলমসহ আরো অনেকে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের মাটিতে সর্ববৃহৎ ধর্মীয় এই মাহফিল করার সুযোগ করে দেয়ায় কাগতিয়ার মহান মোর্শেদে আজম মাদ্দাজিল্লুহুল আলী ছাহেব আমিরাতের শাসকদের প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

এছাড়াও আরব আমিরাত কর্তৃপক্ষ পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) কে স্বীকৃতি দিয়ে রাসুলে পাক (দ.)-এর চারিত্রিক মাধুর্যতা মানবজীবনে প্রতিফলিত করার যে ব্যবস্থাপনা করেছেন সেজন্য আমিরাত সরকারকে আন্তরিক মোবারকবাদ জানান।

পরিশেষে দেশ, জাতি,বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর শান্তি, অগ্রগতি ও উপস্থিত সকলের ইহকালীন কল্যাণ, পরকালীন মুক্তি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও তার পরিবারের দীর্ঘায়ু এবং গাউছুল আজম রাদ্বিয়াল্লাহু আনহুর ফুয়ুজাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

সম্পর্কিত পোস্ট