মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১

অপপ্রচারের শিকার অভিনেত্রী তাহমিনা অথৈ

প্রকাশ: ২৫ জানুয়ারি ২০২৪ | ১:০৭ অপরাহ্ণ আপডেট: ২৫ জানুয়ারি ২০২৪ | ১:০৭ অপরাহ্ণ
অপপ্রচারের শিকার অভিনেত্রী তাহমিনা অথৈ

সাম্প্রতিক সময়ের আলোচিত অভিনেত্রী তাহমিনা অথৈ চবির নাট্যকলা বিভাগে প্রভাষক পদে নিয়োগ নিয়ে অপপ্রচেরের শিকার হয়েছেন মন্তব্য করে বলেন, কোন একটি দুষ্ট চক্র উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে আমার সম্মানহানি করার জন্য চবির প্রভাষক নিয়োগকে কেন্দ্র করে আমার নামে অপপ্রচার চালাচ্ছে। যা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও বানোয়াট।

সম্প্রতি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের প্রভাষক নিয়োগকে কেন্দ্র করে অভিনেত্রী তাহমিনা অথৈ পরিক্ষায় অসাধু উপায় অবলম্বন করে শিক্ষকদের হাতে ধরা পড়ে এমন একটি খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তা উদ্দেশ্য প্রণোদিত ও মিথ্যা দাবি করে এসব মন্তব্য করেন তিনি।

তাহমিনা অথৈ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্রভাষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করলে আমি সেখানে আবেদন করি। এখানে যোগ্য সবারই আবেদন করার সুযোগ আছে। আমার ধারণা আমার সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী কেউ একজন আমার বিরুদ্ধে নকলের অভিযোগ এনে নিয়োগের ঠিক আগ মুহূর্তে আমার ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে সন্দিহান করে তুলতে চান। যে বা যারা এ ধরনের অপপ্রচার চালাচ্ছেন তারা আমার কাছের কেউ হতে পারেন। তারা আমার প্রভাষক নিয়োগ কার্যক্রমে অংশগ্রহণের সাক্ষাৎকার নম্বরটিও উল্লেখ করেছেন।

পরিক্ষায় অসদুপায় অবলম্বনকে মিথ্যাচার দাবি করে চবির নাট্যকলা বিভাগের সাবেক এ শিক্ষার্থী বলেন, আমি বরাবরই পড়াশোনায় ভালো ছিলাম। নকল করে পাশ করার প্রশ্নই উঠেনা। আর আমি নকল করে পাস করলে নিশ্চয়ই বিশ্ববিদ্যালয়ে আমার আমার বিরুদ্ধে কোন নথিপত্র থাকতো। তারা কোন তথ্যপ্রমাণ ছাড়াই আমার বিরুদ্ধে মিথ্যাচার চালিয়েছে। এ ঘটনায় আমি হেনস্থার শিকার হয়েছি। যে বা যারা আমার বিরুদ্ধে এসব অপপ্রচার চালাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে আমি আইনী ব্যবস্থা নিব।

তিনি আরও বলেন, একটি অনলাইন সংবাদমাধ্যমে আমার নাম উল্লেখ করা সংবাদটি দেখে রীতিমতো হতবাক হই। আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলে তারা আমার স্টেটমেন্ট নিয়ে সংবাদ প্রচার করলে আমার তাতে আপত্তি ছিলোনা। কিন্তু তারা আমার সাথে কোন আলাপ আলোচনা না করেই মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদ প্রচার করেন। আমি প্রতিবাদ প্রকাশের জন্য সে পত্রিকার ওয়েবসাইটের নিচে দেওয়া নাম্বারে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তারা কোন সাড়া দেননি।

চবির সাবেক শিক্ষার্থী ও অভিনেত্রী তাহমিনা অথৈ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালীন সময়ে পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বন করেছিলেন কিনা সে বিষয়ে জানতে চাইলে নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষক অসীম দাশ বলেন, আমার জানামতে পরীক্ষার হল এ তাহমিনা এ ধরনের কোন অসদুপায় অবলম্বন করেছেন বলে আমার জানা নেই। তবে তিনি আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কৃতিত্বের সাথে পাশ করেছেন। নকল করে থাকলে নিশ্চয় ডিপার্টম্যান্ট অফিসে নথিপত্র থাকবে। আপনারা ডিপার্টম্যান্ট অফিসে খোঁজখবর নিতে পারেন।

এবিষয়ে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় নাট্যকলা বিভাগের সভাপতি সাকিলা তাসনিম বলেন, তাহমিনা আক্তার পিংকি পরীক্ষায় নকল করেছিলেন কিনা সে বিষয়ে আমাদের কাছে কোন তথ্য নেই। আপনি বলাতে আমি বিষয়টা জানতে পেরেছি। এর আগে আমি বিষয়টি জানতাম না। এ ধরনের অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে ‘ওয়ার্ল্ড মিস ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ’ হন তাহমিনা অথৈ। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগ থেকে প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়ে চবিতে ক্যাম্পাসে আসলে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সেসময় সংবর্ধনা দেয় তাহমিনা অথৈকে। তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান ভিসি শিরিন আখতারও। মূলত ‘ওয়ার্ল্ড মিস ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ’ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার মধ্য দিয়ে মিডিয়া জগতে পা রাখেন তাহমিনা অথৈ। এর মধ্যে তিনি সরকারী অনুদানে নির্মিত তিনটি সিনেমায় অভিনয় করেছেন। এছাড়াও বেশকিছু শর্টফিল্মেও অভিনয় করেন তিনি। বর্তমানে তিনি ওটিটি প্লাটপর্মের একটি কাজ নিয়ে শুটিংএ ব্যস্ত সময় পার করছেন।

সম্পর্কিত পোস্ট